ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

পিঠে সিলিন্ডার বেঁধে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া সেই মা ছেলেকে সংবর্ধনা দিল শিক্ষক সমিতি

স্টাফ রিপোর্টার

২০২১-০৫-১৬ ০১:৪০:৫৩ /

ভাইরাল হওয়া ছবি: মা রেহেনা পারভীন ও ছেলে জিয়াউল হাসান


 
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর প্রথম দিকে পিঠে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে বাইকে করে করোনায় আক্রান্ত মা শিক্ষিকা রেহানা পারভীনকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিল তার ছেলে জিয়াউল হাসান। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার এ করুন দৃশ্য ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তের মধ্যেই ছবিটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে ভাইরাল হওয়া ছবি দিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়।তখন ফেসবুকসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে শিক্ষিকা মায়ের বীর সন্তান জিয়াউল হাসান ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হন।

সে প্রেক্ষিতেই ১৩ মে (বৃহস্পতিবার) বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটি পিঠে  অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া মা রেহানা পারভীন ও ছেলে জিয়াউল হাসানকে ভার্চুয়াল সংবর্ধনা প্রদান করে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো আবুল কাসেম এর সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি জাতীয় জাদুঘরের চেয়ারম্যান ডক্টর আবু আহসান মোঃ সামসুল আরেফিন সিদ্দিক , আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আইয়ের বিশেষ প্রতিনিধি জনাব মোস্তফা মল্লিক। সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান শাহীন অনুষ্ঠানটি  সঞ্চালনা করেন। 

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে  প্রাথমিক শিক্ষকদের নৈতিক শিক্ষার উপর জোর দেন এবং বলেন নৈতিক শিক্ষার বলেই আজকে জিয়াউল হাসান এর মত সন্তান তার বীরত্বের মাধ্যমে মায়ের চিকিৎসা করাতে পেরেছেন। এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতিকে তিনি ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর প্রথম দিকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের হিরণ পয়েন্ট এলাকায় তল্লাশিচৌকিতে দায়িত্বরত ছিলেন ট্রাফিক সার্জেন্ট তৌহিদ টুটুল। দুজন আরোহীর একটি মোটরসাইকেল আসতে দেখে থামার সংকেত দেন। কাছে আসতেই দেখতে পান চালকের পিঠে বাঁধা অক্সিজেনের সিলিন্ডার। পেছনে বসে থাকা নারীর মুখে অক্সিজেন মাস্ক। তাৎক্ষণিক সার্জেন্ট তৌহিদ তাঁদের এগিয়ে যাওয়ার সংকেত দেন।

এমন সময় পথচারীদের কেউ দৃশ্যটি মুঠোফোনে ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেন। দ্রুতই সেই ছবি ছড়িয়ে পড়ে। পরে জানা যায়, মুমূর্ষু মাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে মোটরসাইকেলে এভাবেই ১৮ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছেন জিয়াউল হাসান নামের ওই যুবক।

জিয়াউলদের বাড়ি ঝালকাঠির নলছিটি পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সূর্যপাশা এলাকায়। তাঁর মা নলছিটি বন্দর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক রেহেনা পারভীন (৫০) দশ দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন। ১০ এপ্রিল করোনা পরীক্ষার নমুনাও দেন। কিন্তু প্রতিবেদন পাননি। এর মধ্যেই  সকালে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট। কষ্ট কমাতে একটি সিলিন্ডার কিনে বাড়িতে আনেন তরুণ ব্যাংক কর্মকর্তা ছেলে জিয়াউল হাসান। লাগানো হয় সেটি। কিন্তু অবস্থার উন্নতি হচ্ছিল না। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শ্বাসকষ্টও বাড়তে থাকে রেহেনা পারভীনের। কী করবেন ভেবে পাচ্ছিলেন জিয়াউল।

এরপর মাকে বরিশালের হাসপাতালে আনার জন্য অ্যাম্বুলেন্স এবং অন্য যানের খোঁজে নামেন। কিন্তু পাচ্ছিলেন না। নিরুপায় হয়ে নিজের মোটরসাইকেলে মাকে হাসপাতালে আনার সিদ্ধান্ত নিলেন। পিঠের সঙ্গে শক্ত করে বাঁধলেন অক্সিজেন সিলিন্ডারটি। এরপর মাকে পেছনে বসিয়ে তাঁর মুখে পরানো হলো অক্সিজেন মাস্ক। এভাবে ১৮ কিলোমিটার পথ পার হয়ে সন্ধ্যায় মাকে নিয়ে পৌঁছান বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। পাশে আরেকটি মোটরসাইকেলে ছুটছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া ছোট ভাই রাকিব। 

করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকার পর রেহেনা পারভীন সুস্থ্য হয়ে ছেলের বাইকে করে বাড়ি ফিরেন। কিন্তু মা সুস্থ্য হওয়ার পর ছেলে জিয়াউল হাসানও করোনায় আক্রান্ত হন।কিছু দিন চিকিৎসা নেওয়ার পর তিনিও সুস্থ্য হয়ে উঠেন।

বিডি-শিক্ষা /এফএ

বাংলাদেশ শিক্ষা পত্রিকার সব খবর জানতে ভিজিট করুন bd-shikkha.com

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

৮ম শ্রেণি চালুকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিদারুণ দুঃখগাঁথা দূর হবে কবে

৮ম শ্রেণি চালুকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিদারুণ দুঃখগাঁথা দূর হবে কবে

যেভাবে অনুষ্ঠিত হবে প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

যেভাবে অনুষ্ঠিত হবে প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

যে পদ্ধতিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতি দেওয়া হবে

যে পদ্ধতিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতি দেওয়া হবে