ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

গুগল মিটের টুকিটাকি

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০২১-০৫-২১ ০০:০১:৪৮ /

বৈশ্বিক মহামারি করোনা বদলে দিয়েছে বিশ্বের চিরচেনা রূপ। এ সময়ে বেড়েছে ভিডিও কনফারেন্সিং এর ব্যবহার। ব্যবসা বাণিজ্য বা করোনাকালীন অনলাইন শিক্ষা কার্য্যক্রমে গুগল এর গুগল মিট একটি আদর্শ এ্যাপস হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। সব ফিচার এর পাশাপাশি বাড়তি সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে গুগল মিট অন্যসব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে নিজেকে স্বতন্ত্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছে।

শিক্ষা কার্য্যক্রমে যুক্ত শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক এবং এ কার্য্যক্রমের সাথে যুক্ত সকলের জন্য এর ব্যবহারবিধি, এবং বিভিন্ন সমস্যা সস্পর্কে আজকের এ লেখা।

গুগল মিট আসলে কীঃ

গুগল মিট হলো গুগল এর ব্যবসা-ফোকাসড ভিডিও কনফারেন্সিং টুল। গুগল মিট এর পূর্ববর্তী নাম ছিলো গুগল হ্যাংআউটস মিট। গুগল মিট এ গুগল চ্যাট ও গুগল হ্যাংআউটস এর ভিডিও চ্যাট ফিচার এর পাশাপাশি রয়েছে অংসখ্য এন্টারপ্রাইজ লেভেলের ব্যবহারযোগ্য ফিচার। এসব এন্টারপ্রাইজ ফোকাসড ফিচারগুলো ক্ষুদ্র কিংবা বৃহৎ ব্যবসাগুলোর জন্য আদর্শ সমাধান তবে বর্তমানে গুগল মিট ব্যবসার পাশাপাশি স্কুল এর জন্যও ব্যাপক পরিমাণে ব্যবহৃত হচ্ছে। এছাড়াও জুম অ্যাপকে অনেকেই ট্রাস্টেড মনে করেন না। তাদের জন্য গুগল মিট ভিডিও কনফারেন্সিং টুল হিসেবে প্রথম পছন্দ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গুগল মিট এর পেইড ও ফ্রি ভার্সন এর সুবিধাঃ

কিছু সীমাবদ্ধতাসহ গুগল মিট যে কেউ বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারে। ফ্রিতে ব্যবহারকারীগণ সর্বোচ্চ ১০০জনকে নিয়ে একটানা ১ঘন্টার কনফারেন্স এ অংশ নিতে পারবেন। অন্যদিকে গুগল জি-স্যুট ব্যবহারকারীরা এই ক্ষেত্রে পাবেন বিশাল সুবিধা। জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণ একটানা ৩০০ঘন্টা ও সর্বোচ্চ ১৫০জনকে নিয়ে একটি মিটিং এ অংশগ্রহণ করতে পারেন। এছাড়াও ডোমেস্টিক ও ইন্টারন্যাশনাল কল-ইনস ও কাস্টমার সার্ভিস সুবিধাও পাবেন জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণ। জি-স্যুট এন্টারপ্রাইজ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে এই সুবিধার মাত্রা আরো বেশি। জি-স্যুট এন্টারপ্রাইজ ব্যবহারকারীগণ গুগল মিট এ একটানা ৩০০ঘন্টা ও সর্বোচ্চ ২৫০জনকে নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। থাকছে অসংখ্য এক্সট্রা ফিচারস, যেমনঃ ইন্টেলিজেন্ট নয়েস ক্যান্সেলেশন, গুগল ড্রাইভে মিটিং এর রেকর্ডিং সংরক্ষণ, সিকিউরিটি ফিচারস, ইত্যাদি।

কিভাবে ব্যবহার করবেনঃ

এটির ব্যবহার অনেক সহজ। অনেক কম সময় ব্যয় করে যে কেউই গুগল মিট সম্পর্কে ধারণা অর্জন করতে পারে।

গুগল মিট এ মিটিং বা ক্লাস তৈরী করা অত্যন্ত সহজ। এইজন্য আপনার দরকার পড়বে একটি গুগল একাউন্ট এবং ইন্টারনেট সংযোগের। ব্রাউজার থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ https://meet.google.com এ প্রবেশ করুন New Meeting এ ক্লিক করুন এবং প্রদর্শিত নির্দেশনা অনুসরণ করুন এছাড়াও https://meet.new লিংকে প্রবেশ করার মাধ্যমে এক ক্লিকেই নতুন মিটিং তৈরী করা যায় জিমেইল থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ জিমেইলে প্রবেশ করুন বামদিকে থাকা মেন্যু থেকে Start A Meeting অপশনে ক্লিক করলেই নতুন মিটিং চালু হয়ে যাবে স্মার্টফোন থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ প্লে-স্টোর কিংবা অ্যাপ স্টোর থেকে গুগল মিট অ্যাপ ইন্সটল করুন ইন্সটল এর পর অ্যাপ ওপেন করে কাঙ্খিত জিমেইল একাউন্ট দ্বারা লগিন করুন New Meeting এ ক্লিক করলেই নতুন মিটিং চালু হয়ে যাবে একটি মিটিং তৈরীর পর অটোমেটিক একটি লিংক জেনারেট হয়, যা ব্যবহার করে অন্যান্য পার্টিসিপেন্টরা মিটিং এ জয়েন করতে পারে। গুগল ক্যালেন্ডার বা জিমেইলে শিডিউল থাকা মিটিং এ ইনভাইটেড থাকা ব্যক্তিদের কাছে লিংক স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে যাবে।

গুগল মিট এ মিটিং/ ক্লাসে যোগ দিবেন কিভাবে?

গুগল মিট এ মিটিং/ ক্লাস এ যোগদান করা সবচেয়ে সহজ কাজগুলোর মধ্যে একটি। অ্যাপ বা ব্রাউজার থেকে গুগল মিট এ প্রবেশ করুন Start A Meeting বা New Meeting এর পাশে থাকা Join Meeting এ ক্লিক করুন মিটিং কোড টাইপ করে এন্টার চাপলেই মিটিং এ জয়েন হয়ে যাবে এছাড়াও হোস্টের পাঠানো মিটিং লিংক ব্যবহার করে এক ক্লিকেই মিটিং এ জয়েন করা যায় গুগল মিট এর সেটিংস সমূহ মিটিং তৈরী ও মিটিং এ জয়েন করার পাশাপাশি গুগল মিট এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ সেটিংস ও কাস্টমাইজেশন সম্পর্কে জানা সকল ব্যবহারকারীর জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। কিছু কিছু ফিচার শুধুমাত্র জি-স্যুট ব্যবহারকারীদের জন্য হলেও, অধিকাংশ ফিচারই বিনামুল্যে ব্যবহায়ার সম্ভব। ভিডিও কনফারেন্স এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো কীভাবে পার্টিসিপ্যান্টদের প্রদর্শিত করা হয়। একটি মিটিং এ ডিফল্টভাবে এটি Auto তে সেট করা থাকে। অর্থাৎ কতজন মিটিং এ পার্টিসিপ্যান্ট বা অংশগ্রহণ করছেন ও কথা বলছেন, তার উপর ভিত্তি করে অটোমেটিক লেআউট তৈরী হয়ে যাবে। এই ব্যাপারটির সরাসরি কাস্টমাইজেশন করতে চাইলে, তিন ধরনের বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছেঃ

১. টাইলডঃ ছোট ছোট টাইলে ১৬জন পার্টিসিপ্যান্টকে দেখানো হয়। বাকিদের মধ্যে কেউ যদি প্রেজেন্ট করে থাকে,তবে সাইডবারে প্রদর্শিত হয়।

২. স্পটলাইটঃ শুধুমাত্র প্রেজেন্টেশন বা এক্টিভ স্পিকারকেই স্ক্রিনে দেখানো হয়।

৩.সাইডবারঃ প্রেজেন্টেশন বা এক্টিভ স্পিকারকে মাঝখানে রেখে পাশে ছোট ছোট টাইলসে অন্যান্য পার্টিসিপ্যান্টদের প্রদর্শন করা হয়। এছাড়াও পার্টিসিপ্যান্ট পিন করার সুবিধাও থাকছে, যার মাধ্যমে চাইলেই নির্দিষ্ট পার্টিসিপ্যান্টকে স্ক্রিনের মাঝখানে রাখা যায়। মিটিং এর অংশগ্রহণকারী নিজেদের মাইক চাইলে মিউট করতে পারে। এছাড়াও যিনি মিটিং তৈরী করেছেন, তিনিও চাইলে যে মিটিং এ অংশগ্রহণরত যে কাউকে মিউট করতে পারেন।

এর একটি সবচেয়ে অসাধারণ ফিচার হচ্ছে লাইভ ক্যাপশন। স্ক্রিনের নিচেরদিকে থাকা Turn on captions বাটন চাপলেই স্পিকার এর কথার ক্যাপশন প্রদর্শিত হবে। তবে আপাতত এই ফিচারটি শুধুমাত্র ইংরেজি ভাষাতেই ব্যবহার করা যায়।

কিভাবে ক্লাস বা মিটিং প্রেজেন্ট করবেনঃ

এটি মিটিং যোগাযোগের অসাধারণ মাধ্যম, এতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে মিটিং এ মাঝেমধ্যে সব অংশগ্রহনকারীকে কোনকিছু দেখানোর প্রয়োজন পড়তে পারে। অন্যসব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ এর মত মিটিং চালাকালীন গুগল মিটেও প্রেজেন্টেশন দেখানো সম্ভব। আপনার স্ক্রিন শেয়ার করতে স্ক্রিনের নিচের দিকে থাকা Present Now এ ক্লি করুন। চাইলে আপনি আপনার সম্পূর্ণ স্ক্রিন, একটি নির্দিষ্ট উইন্ডো বা ক্রোম ট্যাব প্রেজেন্টেশন হিসাবে দেখাতে পারবেন। আপনি যদি ভিডিও বা এনিমেশন দেখাতে চান, সেক্ষেত্রে ক্রোম ট্যাব সিলেক্ট করার পরামর্শ দেয় গুগল। পেজের নিচের দিকে থাকা Change Source অপশনটি ব্যবহার করে আপনি অন্য ক্রোম ট্যাব প্রেজেন্ট করতে পারবেন। Stop Presenting এ ক্লিক করলে প্রেজেন্টেশন অফ হয়ে যাবে।

কিভাবে চ্যাট করবেনঃ

আপনি যদি স্ক্রিন শেয়ারিং বা কথা বলার মাধ্যমে কনফারেন্সে কলে কথা বলতে না চান, সেক্ষেত্রে আপনি চ্যাট ফিচারটিও ব্যবহার করতে পারেন। উপরে ডানদিকে থাকা ছোট চ্যাট আইকনে ক্লিক করার মাধ্যমে চ্যাট করার অপশন দেখতে পাবেন৷ কোনো রিসোর্স শেয়ারিং কিংবা প্রশ্নোত্তরের ক্ষেত্রে এই চ্যাট ফিচারটি দারুণ কার্যকর।

কি টুলস আছে গুগল মিটেঃ

জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণরা গুগল মিট এ অসংখ্য প্রয়োজনীয় ফিচার ব্যবহার করতে পারেন। তবে ফ্রিতে যারা গুগল মিট ব্যবহার করেন, তারা এসব ফিচার থেকে বঞ্চিত হন।

প্রয়োজনীয় তথ্য সংগৃহিত।

বিডি-শিক্ষা// আলম

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ঘোষিত রেটের থেকে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট বিল বেশি নিলে কি করবেন?

ঘোষিত রেটের থেকে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট বিল বেশি নিলে কি করবেন?

সারা মাসে সর্বোচ্চ গতির ইন্টারনেট পাওয়া যাবে মাত্র ৫০০ টাকায়

সারা মাসে সর্বোচ্চ গতির ইন্টারনেট পাওয়া যাবে মাত্র ৫০০ টাকায়

গুগল মিটের টুকিটাকি

গুগল মিটের টুকিটাকি