ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসারদের অসহযোগিতায় ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে বিড়ম্বনা!

মো ফারুক হোসেন

২০২১-০৫-২৩ ০১:০২:১৬ /

ফাইল ছবি


সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকগণের নানামুখী সমস্যার মাঝে একটি ক্ষীণ আশার প্রদীপ ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে হিসাবরক্ষণ বিভাগের উদাসিনতা লক্ষণীয়।

আমাদের প্রাণের দাবী ছিলো প্রধান শিক্ষক-১০ম ও সহকারী শিক্ষক-১১তম গ্রেডের কিন্তু সরকার সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেড দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।এই ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসগুলোর উদাসীনতায় তাও দ্রুত বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে!

অপ্রিয় হলেও সত্য যে আমাদের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে অনেক উপজেলায় হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তারা প্রধান প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করছেন যা অত্যন্ত দুঃখজনক! অবশ্য কোথাও কোথাও কিছু হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা যথেষ্ট আন্তরিক।কিন্তু সে সংখ্যা খুবই কম।বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই, "আকাশেতে যেমন লক্ষ তারা, হিসাবরক্ষণ অফিসে তত ধারা" এই নীতি অবলম্বন করছেন!আবার কোথাও সময়ের স্বল্পতার তিন নং হাতও ব্যবহার করছেন,যা সরাসরি চাকরিবিধি লঙ্ঘন। 

অথচ গত ২৬/৪/২০২১ খ্রিষ্টাব্দে মাননীয় মহাপরিচালক, প্রাশিঅ মহোদয় গত ১০/৫/২০২১ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের সাথে সমন্বয় করে ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নের কর্মপরিকল্পনা মোতাবেক নির্দেশনা দিয়েছেন যাহার স্বারক নং ৩৮.০১.০০০০.৫০০.১৯.০০৬.২০.২৬/৩।শুধুমাত্র হিসাবরক্ষণ অফিসের অসহযোগিতায় বাস্তবায়ন হচ্ছে না।অবশ্যই এই কালক্ষেপণের দায় উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসগুলোকেই নিতে হবে।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রণালয় থেকে পরিষ্কার ব্যাখ্যাসহ নির্দেশনাসহ তাগিদ দেওয়ার পরেও হিসাবরক্ষণ অফিসের উদাসিনতা নিঃসন্দেহে শিষ্টাচার বহির্ভূত এবং অসৌজন্যমূলক আচরণ বটে!
 
মূলত সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে আমাদের স্ব স্ব স্থানীয় অভিভাবকবৃন্দ /উপজেলা শিক্ষা অফিসারগণ এবং অফিস সংশ্লিষ্ট সকলে,পাশাপাশি অনেক উপজেলাতে আমাদের সহকর্মীবৃন্দ বিশেষ করে যারা আইসিটিতে দক্ষ তারাও সহযোগীতা করে আসছেন ফলে আমাদের উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে যথাসময়ে সার্বিক কাজ সম্পন্ন করে উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসে প্রেরণ করা হলেও তারা শুধু যাচাই-বাছাই করতেই সময় পাচ্ছেন না!আসলে সময় পাচ্ছেন না,না কি অদৃশ্য কোন কারণ নিহীত আছে?অবশ্যই এমন অনাকাঙ্খিত কালক্ষেপণ কখনোই কারো নিকট কাম্য না।এমন কালক্ষেপণ অবসানকল্পে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নেক দৃষ্টি অতীব জরুরি । 

সুতরাং এহেন বাস্তবতায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে সরাসরি হস্তক্ষেপসহ জরুরি নির্দেশনা দানে মাননীয় সচিব,অর্থমন্ত্রণালয় ও মাননীয় সচিব,প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মহোদয়গণের নিকট বিনীত নিবেদন রাখছি।


লেখক: মোঃ ফারুক হোসেন, আইসিটি সম্পাদক, 
বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, কেন্দ্রীয় কমিটি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠতা গণনায় জটিলতা

প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠতা গণনায় জটিলতা

উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসারদের অসহযোগিতায় ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে বিড়ম্বনা!

উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসারদের অসহযোগিতায় ১৩তম গ্রেড বাস্তবায়নে বিড়ম্বনা!

EFT ফরম পূরণেও বুঝা গেলো যে প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকের পদটি ৩য় শ্রেণির!

EFT ফরম পূরণেও বুঝা গেলো যে প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকের পদটি ৩য় শ্রেণির!