ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২

স্বামীর দেওয়া আগুনে ঝলসে গেলো শিক্ষিকা স্ত্রীর শরীর

জেলা প্রতিনিধি

২০২২-০১-০৬ ১৩:৫৩:০২ /

ফাইল ছবি
রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফাতেমা খাতুনের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়েছেন তার স্বামী সাদিকুল ইসলাম।

এতে ওই শিক্ষিকার মুখ ও বুক পুড়ে গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে রামেক হাসপাতালের ৬নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল বুধবার (৫ জানুয়ারি) গভীর রাতে মহানগরীর রাজপাড়া থানার বুলনপুর ঘোষপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাদিকুল ইসলামের সঙ্গে স্ত্রী ফাতেমা বেগমের দাম্পত্য কলহ চলছিল কিছু দিন ধরে। স্বামী সাদিকুল ইসলাম প্রায়ই স্ত্রীকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে আসছিলেন। দাম্পত্য কলহের জেরে বুধবার রাত সোয়া ১টার দিকে স্বামী সাদিকুল স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেন।

স্ত্রী বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা আসেন। এ সময় সাদিকুল ঘরের দেয়াল টপকে পালিয়ে যায়। ফাতেমা বেগমকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহতের ছোটবোন নূরজাহান খাতুন জানান, বুধবার রাত ১টার দিকে কিছু বোঝার আগেই গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যান সাদিকুল ইসলাম। খবর পেয়ে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আগুনে তার মুখ, বুক ও দুই হাত পুড়ে গেছে।

নূরজাহান আরও জানান, বিয়ের পর থেকেই গত ২০ বছর ধরে বোনকে নির্যাতন করে আসছিলেন সাদিকুল। পারিবারিক ও সামাজিক চাপের কারণে বিষয়টি এতদিন ধরে ধামাচাপ দেওয়া হচ্ছিলো। দুটি সন্তান থাকায় নির্যাতন সয়েই এতদিন সংসার করে আসছিলেন তার বোন।

এই বিষয়ে রাজপাড়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম বলেন, স্বামী সাদিকুল পলাতক। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

বিডিশিক্ষা// এএ

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ড. জাফর ইকবালের অনুরোধে অনশন স্থগিত করলো শিক্ষার্থীরা

ড. জাফর ইকবালের অনুরোধে অনশন স্থগিত করলো শিক্ষার্থীরা

পালশা ইউনিয়ন বাসীর দারপ্রান্তে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী ইসমেত চৌধুরী

পালশা ইউনিয়ন বাসীর দারপ্রান্তে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী ইসমেত চৌধুরী

নালিতাবাড়ীতে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

নালিতাবাড়ীতে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার