ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২

চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর পক্ষে গণজোয়ার

বিশেষ প্রতিনিধি, ঘোড়াঘাট,দিনাজপুর।

২০২২-০১-০৭ ১৯:৪১:২১ /

চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর


৬ষ্ঠ ধাপের ইউনিয়ান পরিষদ নির্বাচনে দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার ২নং পালশা ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ৩১ জানুয়ারি/২০২২ খ্রিঃ তারিখ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর রাজনৈতিক পরিবার গোপালপুর চৌধুরী পরিবারের উত্তরসূরী, সাবেক ২নং পালশা ইউনিয়ন কাউন্সিল/বোর্ডের প্রসিডেন্ট (১৯২২--১৯৫০ খ্রিঃ) মরহুম কাজী মফিজ উদ্দীন চৌধুরীর নাতি, সাবেক জাতীয় সাংসদ(১৯৮৬ খ্রিঃ) কাজী আবু জাফর মুহম্মদ লুৎফুর রহমান চৌধুরীর (লুৎফুর চৌধুরী) একমাত্র পুত্র, সাবেক ঘোড়াঘাট উপজেলা পরিষদ ও ২নং পালশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মরহুম কাজী আবুল কাশেম মুহম্মদ আনিছুর রহমান চৌধুরীর ভাতিজা, সাবেক ২নং পালশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মরহুম কাজী সামছুল হুদা চৌধুরীর ছোটভাই (চাচাত ভাই) এবং সাবেক ঘোড়াঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শুভ রহমান চৌধুরীর ছোটভাই (চাচাত ভাই)।

তার আচার আচরণে এলাকার শিক্ষিত যুবক ভোটার,বয়স্ক ভোটাররা কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীকে আগামী ইউপি নির্বাচনে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান করতে চায়।

২নং পালশা ইউনিয়ন বাসীরা জানান বিপদে আপদে সবসময়ই জনগণের পাশে যাদের কাছে পাই তাদের পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরীকে ভোটের মাধ্যমে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করতে চাই। কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর দাদা-বাবা-চাচা-ভাই সবাই জনগণের জন্য নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে যান সবসময়ই,তাই আমরা এবার তাকেই ভোট দিব। 

উল্লেখ্য দিনাজপুর সদর, পাহাড়পুর ষষ্ঠীতলায় বিশাল জমিদার বাড়ি দিনাজপুর জেলার জনগণের আশ্রয়স্থল।দিনাজপুর জেলায় এলাকার জনগণ যে কোন কাজে গেলে সেই বাড়িতে থাকা-খাওয়া উন্মুক্ত। এলাকার মানুষ দিনাজপুরে রাতে আবাসিক হোটেলে না থেকে সেই জমিদার বাড়িতেই থাকেন এবং সাবেক এমপি মানুষের এমন সেবা দিয়ে আত্মতুষ্টি পান।

তাদের গোপালপুর চৌধুরী পরিবারের দরজা সবার জন্য উন্মুক্ত।যে কোন সময যে কোন কাজে তাদের বাড়িতে গেলে বাইরে অপেক্ষা করতে হয়না,সরাসরি বাড়ির ভিতরে যেতে পারে।জমিদার পরিবার হওয়া সত্তেও তাদের কোন অহংকার নেই।সবাই সাধারণ জীবনযাপন করতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন।
২নং পালশা ইউনিয়ন,ঘোড়াঘাট উপজেলা তথা দিনাজপুর জেলায় রাজনৈতিক পরিবার হিসেবে তাদের বেশ সুনাম 

তাই তো উচ্চ শিক্ষিত,সৎ, যোগ্য,জনগণের সবার প্রিয়মুখ তারূণ্যের অহংকার কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরীর পক্ষে গণজোয়ার উঠেছে।তার জনপ্রিয়তা সব প্রার্থীর থেকে শীর্ষে। কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরী "চশমা" প্রতীক চেয়ে মনোয়ন জমা দিয়েছেন। বিশেষ করে এলাকার তরূণ যুব সমাজ দলমত নির্বিশেষে চৌধুরী সাহেবের জন্য সবার কাছে ভোট ও দোয়া চাচ্ছে।

এ বিষয়ে কাজী ইসমেত আহমেদ রুশদ্ চৌধুরী তার প্রতিক্রিয় ব্যাক্ত করেন যে, তিনি নির্বাচিত হলে ২নং পালশা ইউনিয়ন পরিষদকে বাংলাদেশের মডেল পরিষদ হিসেবে রূপান্তর করবেন।তিনি আরো বলেন আমার নির্বাচনী কর্মীর মূল্যায়ন করবো যথাযথভাবে এবং এলাকার গরীব অসহায় পরিবারের সরাকরি সব বরাদ্দ সরাসরি তাদের হাতে পৌঁছে দিব।কোন মাধ্যম ধরতে হবে না।নির্বাচনী কর্মী কিংবা বিশেষ কোন ব্যক্তির মাধ্যমে দিব না।যাতে সবার ন্যায্য পাওনা সরাসরি পান সে ব্যবস্থাই করব ইনশাহআল্লাহ।কর্মীর মূল্যায়ন, কর্মী হিসেবে পাবেন আর সরকারি বরাদ্দ বা যে কোন অনুদান সরাসরি ভুক্তভোগী যাতে পান তা নিশ্চিত করব।কোন অনিয়ম নিজেও করব না কাউকে করতেও দিব না।পরিশেষে তিনি ২নং পালশা ইউনিয়নবাসীর কাছে দোয়ার পাশাপাশি ভোট চান।

আগামী ৩১ জানুয়ারি ২০২২ খ্রিস্টাব্দ নির্বাচনে জনগণের সেবা করার ও আমাকে পরীক্ষা করার জন্য অন্তত আমাকে আপনারা আপনাদের মূল্যবান ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি ।

বাংলাদেশ শিক্ষ/এফএ

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

ড. জাফর ইকবালের অনুরোধে অনশন স্থগিত করলো শিক্ষার্থীরা

ড. জাফর ইকবালের অনুরোধে অনশন স্থগিত করলো শিক্ষার্থীরা

পালশা ইউনিয়ন বাসীর দারপ্রান্তে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী ইসমেত চৌধুরী

পালশা ইউনিয়ন বাসীর দারপ্রান্তে চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী ইসমেত চৌধুরী

নালিতাবাড়ীতে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

নালিতাবাড়ীতে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার