ঢাকা, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২

নালিতাবাড়ী উপজেলা আওয়মীলীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

জাফর আহম্মেদ

২০২২-০৫-১৭ ২০:০৭:৩৬ /

ফাইল ছবি

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করা হয়েছে । ১৭ মে মঙল বার বিকেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউল হোসেন মাস্টারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওামীলীগের সাধানণ সম্পাদক ফজলুল হক ,যুগ্ন-সম্পাদক ওয়াজকুরুনী,এড.গোলাম কিবরিয়া বুলু,নন্নী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিল্লাল চৌধুরী প্রমুখ,

 উল্লেখ্য প্রকৃতপক্ষে ১৭ মে এ দেশের ইতিহাসের মাইলফলক। সেদিন থেকেই দেশের রাজনৈতিক মঞ্চে দ্রুত দৃশ্যপট পরিবর্তন হতে থাকে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে বঙ্গবন্ধু ও জয়বাংলা স্লোগান নিষিদ্ধ ছিল। সেদিন থেকেই সেই স্লোগান প্রকম্পিত হয়ে উঠল আকাশে-বাতাসে; রাজপথ জনগণের দখলে চলে গেল। সেনাশাসক জিয়া এত দিন শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের বিরুদ্ধে ছিলেন। কিন্তু প্রত্যাবর্তনের আগে সেই বছরই শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন এবং জিয়ার অভিসন্ধি ভেস্তে যায়। সেদিনের ঢাকায় লক্ষ্য মানুষের বাঁধভাঙা স্রোত তাঁকে কেন্দ্র করে সমবেত হয়েছিল। তাদের কণ্ঠে ছিল বিচিত্র ধ্বনি ও প্রতিধ্বনি—‘শেখ হাসিনার আগমন শুভেচ্ছা স্বাগতম’

 ‘শেখ হাসিনা তোমায় কথা দিলাম, মুজিব হত্যার বদলা নেব’, ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’। আরও ছিল—‘শেখ হাসিনা আসছে, জিয়ার গদি কাঁপছে, গদি ধরে দিব টান জিয়া হবে খানখান। আবালবৃদ্ধ জনতা আবেগে অশ্রুসিক্ত হয়ে উচ্চারণ করেছিল—‘মাগো তোমায় কথা দিলাম, মুজিব হত্যার বদলা নেব।’

সেদিনের প্রত্যয় শেখ হাসিনা ও তাঁর সরকারই বাস্তব করে তুলেছে। জাতির পিতা হত্যাকাণ্ডের কয়েকজন খুনির ফাঁসি কার্যকর হয়েছে । ১৭ মে ওই দিন কালবোশেখির ঝোড়ো হাওয়ার বেগ ছিল ৬৫ মাইল। এবং এই দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে লাখো মানুষ শেখ হাসিনাকে এক নজর দেখার জন্য রাস্তায় ছিল।’ দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর শেখ হাসিনাকে বহনকারী উড়োজাহাজটি ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

 উড়োজাহাজ থেকে নেমেই তিনি দেশের মাটিতে চুমু খান। এ সময় বিপুল জনতার বিচিত্র স্লোগান মুখরিত করে তুলেছিল ঢাকার রাজপথ। যেন সূর্যোদয় হয়েছে, নতুন দিনের পথ চলা শুরু হলো। অশ্রুসজল সেই দিনের কথা আছে নানাজনের স্মৃতিচারণে। ঢাকা শহর তখন মিছিলের নগরী। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটের পর বিমানবন্দরের শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ে। শেখ হাসিনাকে বহনকারী উড়োজাহাজটি মাটি স্পর্শ করার আগেই হাজার হাজার উৎসাহী জনতা সকল নিয়ন্ত্রণের সীমা, নিরাপত্তা বেষ্টনী অতিক্রম করে ফেলে।

 নিরাপত্তাকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের তৎপরতায় অবশেষে তিনি নেমে আসেন; হাত নেড়ে জনতাকে শুভেচ্ছা জানান। কিন্তু তাঁর অন্তরে ততক্ষণে রক্তক্ষরণ শুরু হয়েছে। বিকেল ৪টা ৩২ মিনিটে শেখ হাসিনা একটি ট্রাকে ওঠেন। এ সময় বজ্র নিনাদে জনতার স্লোগান চলছিল। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক যখন ফুলের মালা পরিয়ে অভিবাদন জানান, তখন বাঁধভাঙা কান্নার জোয়ার এসে ভাসিয়ে দেয় শেখ হাসিনাকে; কেঁদে ওঠেন তিনি। সেই ঐতিহাসিক মুহূর্তটি কেবল পাকিস্তানের কারাগার থেকে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সঙ্গেই তুলনীয়।

বাংলাদেশ শিক্ষা/জাআ

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

নালিতাবাড়ীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পুড়ে কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

নালিতাবাড়ীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পুড়ে কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

নালিতাবাড়ীতে মাদকাসক্ত প্রতিবেশি যুবকের দায়ের কোপে নববধূ নিহত

নালিতাবাড়ীতে মাদকাসক্ত প্রতিবেশি যুবকের দায়ের কোপে নববধূ নিহত

পাইলটিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষক বদলী কার্যক্রম শুরু

পাইলটিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষক বদলী কার্যক্রম শুরু