ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩

কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেন প্রয়োজন

মোঃ মাসুদুল হাসান

২০২৩-০১-০৩ ১১:০৬:২৫ /

 

১. প্রেক্ষাপট: 

শিশু বিশেষ করে কন্যা শিশুর প্রতি শারীরিক, মানসিক নির্যাতন, ইভটিজিং ও যৌন নীপিড়ন প্রতিরোধে তৃণমূল পর্যায়ে (বিদ্যালয়ে) সামাজিক কোন নেটকওয়ার্ক/সংগঠন না থাকায় শিশুর প্রতি সহিংসতার ঘটনা বেড়ে যায়। ফলে শিশুর শারিরীক ও মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্থ হয়, বিদ্যলয়ে শিশুর উপস্থিতির হার কমে যায় এবং শিশু ঝড়ে পড়ে। ইনোভেশনঃ “কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল” এবং সংশ্লিষ্ট মোবাইল অ্যাপ "Child Protection" এর মধ্যমে শিশু নীপিড়ন ও সহিংসতা প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে। 

২. অগ্রাধিকার ও উদ্দেশ্যসমূহ: 

কন্যা শিশু/সকল শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে প্রতিটি বিদ্যালয়ে শিক্ষক, অভিভাবক, জনগণ ও জন প্রতিনিধির সমন্বয়ে “কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল” গঠন করতে হবে। 

কন্যা শিশু সুরক্ষা সেলের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য সমূহঃ

 শিশুর প্রতি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন, ইভটিজিং, শিশু পাচার ও যৌন নিপিড়ন প্রতিরোধ করা। 

 সহিংসহার কারণে শিশুর মানসিক ও শারীরিক বিকাশ বাঁধাগ্রস্থ হলে তা প্রতিরোধ ও প্রতিকার করা।

 সহিংসতার কারণে শিশুর অনুপস্থিতি বা ঝরে পড়ায় ব্যবস্থা গ্রহণ। মেন্টরিং ও মটিভেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে শিশু ও   অভিভাবককে শিশু সুরক্ষা বিষয়ে সচেতন করা।

 শিশু নিপিড়নের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনায় ভিকটিম ও তার পরিবারকে “কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল” সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে (আইনি সেবা, পুলিশ ও প্রশাসনের সেবা, চিকিৎসা সেবা ও কউন্সিলিং প্রদান) 

 শিশু নির্যাতন প্রতিরোধের পাশাপশি শিশুর নিরাপত্তা, সুস্বাস্থ্য, টিকা, বয়োঃ সন্ধিকালের পরিবর্তন, প্যারেন্টিং ইত্যাদি বিষয়ে মটিভেশন ও মেন্টরিং কার্যক্রম পরিচালনা করা।  

৩. ব্যবহৃত সৃজনশীল পদ্ধতিসমূহ: 

প্রতিটি বিদ্যালয়ে শিক্ষক অভিভাবক, জনগণের সমন্বয়ে “কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল” নামে একটি সেল থাকবে। উপজেলা পর্যায়ের সেলের সাথে সমন্বয় করে এটি শিশুর প্রতি সহিংসতা/নীপিড়ন প্রতিরোধ করবে। অনুরূপভাবে জেলা, বিভাগ ও জাতীয় পর্যায়ে সেল থাকবে। উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অফিসার ইনচার্জ, উপজেলা শিক্ষা অফিসার এর সমন্বয়ে গঠিত সেল দ্রæত পদক্ষেপ গ্রহণ করে। বিদ্যালয়ের বিলবোর্ডে টোল ফ্রি হট লাইন নম্বর-(৯৯৯,১০৯,১০৯২১,১০৯৮,৩৩৩,১৬৪৩০,১৬২৬৩) এবং টঘঙ,ঙঈ, টঊঙ এর নম্বর এবং “কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল” এর বিস্তারিত কার্যক্রম প্রদর্শিত হচ্ছে। প্রতিটি বিদ্যালয়ে একজন শিক্ষিকা সুরক্ষা সেলের ফোকাল পারসন/মেন্টরের দায়িত্ব পালন করবে। 

এছাড়া এই উদ্ভাবনী কার্যক্রমের জন্য "Child Protection" নামে একটি মোবাইল অ্যাপ তৈরি রয়েছে যা শিক্ষক, অভিভাবক ও শিশুদের প্রদান করতে হবে। এই অ্যাপের মাধ্যমে হাতের মুঠোয় ওয়ান টাচে বিনা খরচে প্রশাসনের সহযোগিতা, পুলিশের সহযোগতিা, র‌্যাবের সহযোগিতা, জরুরী সাস্থ্য সেবা ও সরকারি আইন সেবা পাওয়া যায়। এছাড়া এই অ্যাপের শতাধিক মটিভেশনাল মেন্টরিং এর মাধ্যমে শিশু, কিশোর, কিশোরী, শিক্ষক, অভিভাবক সকলকে শিশু নীপিড়ন, সহিংসতা প্রতিরোধ এবং শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশ সম্পর্কে সহজে সচেতন করা যায়।   

লেখক: মোঃ মাসুদুল হাসান,উপজেলা শিক্ষা অফিসার, আক্কেলপুর, জয়পুরহাট।

                

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

মেডিকেল কলেজের পরীক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন

মেডিকেল কলেজের পরীক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন

শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি ও ঝরে পড়া রোধের কার্যকরী উপায়

শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি ও ঝরে পড়া রোধের কার্যকরী উপায়

কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেন প্রয়োজন

কন্যা শিশু সুরক্ষা সেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেন প্রয়োজন